এটি খ্রিস্টজন্মের ৬০০ বছর আগের বানানো। গ্রিকরা একধরনের ছাগ উৎসব পালন করত এখানে এসে। মানুষ ছাগলের চামড়া গায়ে দিয়ে নর্তন-কুর্দন করত। এটাই ছিল

উৎসবের বিষয়।

বিপুল সংখ্যক মানুষের সমাগম হতো দেখে নেতারা ঠিক করলেন, এখানে নাটক করবেন। সফোক্লিস, একিলাস প্রমুখ নাট্যকারকে বলা হতো এখানে পরিবেশন করার উপযোগী নাটক লিখতে। রাজ-রাজড়ারা নাটকের বেশ সমঝদার ছিলেন। আয়োজনের সব খরচই শুধু নয়, দূর-দূরান্ত থেকে যেসব লোক নাটক দেখতে আসত, তাদের আপ্যায়নের ব্যবস্থাও করতেন তারা।

সে সময় এখানে ৬৪টি সারিতে ১৭ হাজার দর্শক এক সাথে বসে নাটক দেখার সুযোগ পেত। পেছনের দিকে কয়েকটি সারি নির্দিষ্ট ছিল নারীদের জন্য। এ থিয়েটারে সবচেয়ে সম্মানিত আসনটিতে বসতেন ডায়েনিসসের ধর্মযাজক। তার সিংহাসনটির ওপরে ছায়া দেয়ার জন্য আলাদা ছাতা বসানো হতো।

 

তথ্যসূত্র : কালের খেয়া, শাকুর মজিদ